banner

The New Stuff

267 Views

‘নারী’কে পাশ কাটিয়ে ইসলামের চুড়ান্ত সফলতা কামনা অপরিপূর্ণ ক্রিয়া


ধারাবাহিক আলোচনার ১ম পর্ব —
“বিশ্ব সুন্নী আন্দোলনে”র দেশ – বিদেশের বিভিন্ন ইসলামীক প্রোগ্রামে নারীদের উপস্থিতি দিনদিন উরধ্মুখী লক্ষ্য করে বাংলার কিছু অস্পৃশ্য চরিত্রে বিকাশমান ব্যক্তিবর্গরা পেছন থেকে ফোড়ন কেটে যাচ্ছেন ।
মূলত যখন নিজের বিবেগ থেকে এই আওয়াজ বের হয়ে আসছে যে, মহান ইমাম হায়াতের (আ-রাহ) এই রুহানী আন্দোলন মূলত আল্লাহ ও তার রাসূল (সা) এর নবী প্রেমকে আবর্তন করেই, ঠিক তখনই হিংসার উদ্রেগের উদ্গীরন হোক বা “বিশ্ব সুন্নী আন্দোলনে”র আন্দোলন ধাবমান উল্কার মতো ছুটে চলা দেখে চোখ ধাধানিতে পড়ুক সে “বিশ্ব সুন্নী আন্দোলন”কে পাশ কাটাবার জন্যে প্রধান অস্ত্র হিসেবে ব্যাবহার করে -> আমাদের বিভিন্ন প্রোগ্রামে ‘নারীদের অংশগ্রহন’কে । (?)
মূলত যারা জীবননীতি বা রাজনীতিতে ‘নারী’কে পাশ কাটিয়ে ইসলামের চুড়ান্ত সফলতা কামনা করে তারা গোড়া ছাড়াই আগায় উঠাতে বিশ্বাসীর মতো ? । হ্যা তারা মূলকে বাদ দিয়ে গাছের আগাতে উঠতে চাচ্ছে কিনা সেটা খানিকটা চিন্তারই বিষয় । কেননা রাসূলে আরাবী মুহাম্মাদ মুজতাবা সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম এর দ্বারা দ্বীন কায়েমের সূচনাতেই ছিলেন একজন ‘নারী’ । আর তিনি হলেন আম্মাজান খাদিজাতুল কুবরা রাদিয়াল্লাহু তাআলা আনহা । আল্লাহর হাবীব মুহাম্মাদ (সা) এর দ্বারা ইসলামের বুনিয়াদী চাড়ায় যিনি পানি ঢেলে অমর হয়েছেন তিনি হলেন একজন নারী, যার নাম আল্লাহর হাবীব (সা) তার দুনিয়া থেকে পর্দা নেবার পূর্ব পর্যন্ত ধারবাহিকভাবে ইতিহাসের বাঁকে বাঁকে খোদ নিজেই (সা) স্বীকৃতি দিয়ে গিয়েছেন ।
ইসলাম প্রতিষ্ঠার গোড়াতে একদিকে নারী হিসেবে লাইমলাইটে আসেন আম্মাজান খাদিজাতুল কুবরা (রাআনহা) , মধ্যবয়সী হিসেবে লাইমলাইটে অবদান রাখেন কুরাঈশ বংশের তৎকালীন শরীফ বংশের ও শরীফ চরিত্র হিসেবে বিখ্যাত ব্যক্তিত্ত হজরত আবু বকর রাদিয়াল্লাহু তাআলা আনহু, অপরদিকে উঠতি যুবক হিসেবে ইতিহাসে সাক্ষর রাখেন হজরত আলি ইবনে আবি তালিব রাদিয়াল্লাহু তাআলা আনহু । এখানে একটি সুক্ষ বিষয় লক্ষ্য করুন – উপরোক্ত তিনজন নারী পুরুষের মাঝে আম্মাজান খাদিজা রাদিয়াল্লাহু তাআলা আনহা ছাড়া বাকি দুজনেই কিন্তু আল্লাহর হাবীব মুহাম্মাদ (সা) দুনিয়া থেকে পর্দা নেওয়া পরবর্তী খালিফাতুল মুসলিম হবার সৌভাগ্য অর্জন করেছিলেন । সুতরাং আমি বলবো – আম্মাজান খাদিজা (রা) যদি হুজুর (সা) পরবর্তী জীবিত থাকতেন তবে অবশ্যই আম্মাজান আয়েশা সিদ্দিকা (রা) এর মতো জঙ্গে জামাল , সিফফিনের জিহাদের মতো জিহাদে হস্তক্ষেপ করে খালিফাতুল মুসলিমার মতো আদর্শিক কাজ আঞ্জাম দিয়ে অমর হয়ে থাকতেন ।
বলতে পারেন আপনি – সাহাবা যুগে কোথায় না ছিলো নারীদের সরাসরি হাতে কলমের মতো প্রশিক্ষনযুক্ত অবদান ?
সাহাবা যুগের কি ‘জঙ্গ’ বলুন আর ‘গাজওয়া’ই বলুন ‘জিহাদ ফি সাবিলিল্লাহ’ ওয়া ‘কিতাল ফি সাবিলিল্লাহ’র মতো কঠিন পরিস্থিতিতে সাহাবীয়াত তথা নারীদের অংশগ্রহণ ছিলো চোখে পরার মতো ।
মূলত ওয়ারীশান সূত্রে প্রাপ্ত আর নিজ পালে হাল দিয়ে ইসলামীক স্কলার হিসেবে দুনিয়াতে মহীরুহ হিসেবে আত্তপ্রকাশ করাটা বিস্তর পার্থক্য । (?) যারা নারীদেরকে দ্বীনের খিদমাতে ব্যাবহারের বিরোধীতা প্রকাশ্যে করে যাচ্ছে তারা যেন ঠিক তেমন যেন অযোগ্যতা সত্তেও স্রেফ ওয়ারিশান সূত্রে প্রাপ্ত থিউরী আর লজিকেই আবধ্য , ওরা যেন এর বাইরে আর কিছুই বুঝতে চায় না – দালীল আদীল্লা যেই মানেই হোক না কেন ?
আমরা পরম স্রধ্যার সাথে স্মরণ করি সেইসব নারী সাহাবাদের (রাদি) যারা জিহাদের ময়দানে সরাসরিই আহত সাহাবা রাদিয়াল্লাহু তাআলা আনহুদের সেবা শুশ্রূষা দিতেন, মানসিকভাবে দিতেন অনুপ্রেরনা । এখন চিন্তাশীল ব্যক্তিরা একটুখানি ভাবুন তো জিহাদের মতো কঠিন ওষ্ঠাগত প্রানের ভয়ে জড়িত মুহূর্তে নারীদের অবদান সাক্ষর কি আর কোন পর্যায়ের দ্বীনের খিদমাত ছিলো ?
নারীদের অবদান আল্লাহর হাবীবের (সা) শুরু থেকে শেষ পর্যন্তই । কেননা আল্লাহর হাবীবের (সা) শুরুতে খাদিজাতুল কোবরা (রা-আনহা) এর মানসিক ও অর্থনৈতিক সহযোগিতা আর আল্লাহর হাবীব (সা) এর ইন্তেকালের সময়ে আম্মাজান আয়েশা সিদ্দীকার হাতের ছোয়া , আল্লাহর হাবীব (সা) আম্মাজান আয়েশা সিদ্দীকার উরুতে মাথা রাখাকালীন অবস্থাতে জিবরাইল আমীন (আ) , আজরাইল (আ) এর আগমন এবং এর পরবর্তী ইতিহাস আলেম মাত্রই জানা ।
তবে সকল খিদমাতের জন্যে পূর্বশর্ত হলো – “নারীর পর্দা” । হ্যা আপনার এই সতর্কতামূলক বানী ”বিশ্ব সুন্নী আন্দোলনে”র নীতি নির্ধারক আমাদের মহান ইমাম হায়াত (আ-রাহ) সর্বাবস্থায় বাস্তবায়নে আনার পক্ষপাতি , এতে মহান ইমামের (আ -রাহ) কোন প্রকারই দুর্বলতা প্রকাশমান হিসেবে নেই ।
কিন্তু আসুন একটু মানতেকে যাই – নারীবাদীদের বিশ্বব্যাপী জমকালো প্রচারনা, নাস্তিক্যবাদ শক্তিগুলোর নারীবাদীতার কড়াল গ্রাস, সাম্যের বার্তাবাহী শয়তানী পতাকাবাহী বিভিন্ন মন্ত্র – তন্ত্রের নখের আচড়, বিভিন্ন চেতনা নামের অচেতন করা চেতনাবীদের খোলা ডাক যেখানে নারীদের উদ্যম নিয়ে জাহান্নামের দিকে ধাবিত করছে আর শতকরা ৭০ থেকে ৮০ শতাংশ নারীরাও সেই ডাকে সাড়া দিয়ে পংগপালের মতো সেদিকেই ছুটছে আর বাদ্যপূজারীরা “সুন্দরী কমলা নাচে” বলে মিডিয়ার নজরকাড়া ব্যাকআপ দিচ্ছে সেখানে তাদের মনমগজ ধৌত করণ প্রক্রিয়াটা ঠিক কি হওয়া উচিত আমাদের ? হ্যা সেখানে মাসআলা হচ্ছে অবশ্যই স্লো ডাউন নীতি , আর সেটা কি ? সেটা হলো সেই সাহাবাদের মদ পরিত্যাগ করাবার আল্লাহ ও তার রাসূলের দর্শন ও নীতি । আগে মন জয় তারপর ইসলামী হুকুমের পরিপূর্ণ তাবেদারী করা একজন আদর্শিক নারীতে ডাইভারট । আর এটা আলেম মাত্রই জানেন যে, ইসলামের স্বর্ণ যুগের গোড়াতে পর্দার হুকুম নারীদের উপর জারী ছিলো না, ধীরে ধীরে মনের মুক্তি মানবতার মুক্তি পরবর্তীই পর্দার হুকুম নিজের গায়ের গহনা হিসেবেই সাহাবিয়াতরা মেনে নিয়েছিলেন । আর তাই মহান ইমাম আমাদের ইমাম হায়াত (আ-রাহ) এর সরাসরি নীতি আদর্শের উপর পরিচালিত নারীনীতির সাথে ইসলামের মূল ধারার সাথে কোন প্রকারেরই সংঘাত নেই ।
বর্তমান বিশ্বের নারীদের “বিশ্ব সুন্নী আন্দোলন দিচ্ছে ডাক” এসো শোধন প্রক্রিয়ায়, আর গড়ে তোলো ইসলামের মহান আদর্শের চরমতম আদর্শিক একজন নারী হিসেবে নিজ জীবনকে ঠিক যেন তুমি এ যুগের সেই সুমাইয়া রাদিয়াল্লাহু তাআলা আনহা” ।
আসছি ২ য় পর্ব নিয়ে __


This post has been seen 266 times.
শেয়ার করুন

Recently Published

»

ইসলাম প্রতিমার বিরুদ্ধে, ভাস্কর্য ও মূর্তির বিরুদ্ধে নয়, একটি দালীলিক পর্যালোচনা

নাজমুল মুহম্মদ ...

»

আহমাদিয়া মুসলিম জামাত নামধারী কুখ্যাত কাফের কাদীয়ানিয়াদের স্বরূপ উন্মোচন – ২য় খন্ড

সোনার বাংলাসহ গোটা ...

»

মেরাজুন্নাবী (সা) এর মূল দীক্ষাকে অস্বীকার করা প্রত্যক্ষভাবে শানে রেসালাতের অস্বীকৃতি

টাইমস৭১বিডি ডেস্ক, ঢাকা ...

»

উম্মেহানী এর পরিচয় ও নাস্তিকদের দাঁত ভাংগা জবাব

মাসুদ পারভেজ – ...

»

কিভাবে বাংলাদেশের জেলায় জেলায় বিদেশী অর্থায়নে ছড়িয়ে দেওয়া হচ্ছে সমকামীতা

নিলয় হাসান বলছি –  জেনে ...

»

হেফাজতে ইসলামের চেতনার মূল গোড়ায় “ওহাবীবাদ রাজনীতি”

ইন্টারনেট থেকে প্রাপ্ত ...

»

কাদীয়ানিয়াত আহমাদিয়া মুসলিম জামাতের স্বরূপ উন্মোচনে ধারাবাহিক আলোচনা- ১ম পর্ব

ব্লগ ডট টাইমস৭১বিডি থেকে ...

»

“খোমেনীকে সমর্থন দেওয়া মানে শিয়াবাদকে সমর্থন দেওয়া”

‘টাইমস৭১বিডি ‘র ...

»

আমার প্রিয়নবীর পিতা মাতা নিষ্পাপ-মুমিন-ঈমানদার মুসলমান ছিলেন, জাহান্নামী নন

আমার প্রিয়নবীর  (সা) পিতা ...

Shares
Loading...