banner

The New Stuff

14650162_1793332307615351_7045395582977483766_n
3067 Views

“খোমেনীকে সমর্থন দেওয়া মানে শিয়াবাদকে সমর্থন দেওয়া”


‘টাইমস৭১বিডি ‘র একান্ত সাক্ষাৎকারে জামিয়া মাদানিয়া দারুল হাবীবের মহাপরিচালক আ ফ ম মুফতী ড আনোয়ার হুসাইন সাঈফী সাহেব __ 

ইমাম খোমেনীর বিষয়ে আপনার বক্তব্য _

ইরানের খোমেনী সাহেব তিনি মূলত শীয়া , এবং তিনি শীয়াদের প্রতিনিধিত্ত করেন । তিনি মূলত শীয়াবাদের প্রচার প্রচারক হিসেবেই লাইমলাইটে এসেছেন ।

আহলে বায়াতের সম্মান প্রদর্শনের ক্ষেত্রে আমাদের করনীয় কি –

আহলে বায়াতের সম্মান প্রদর্শনের প্রশ্নে আমাদের আহলুস সুন্নাহওয়াল জামাআতের কোন কার্পণ্যতা নেই, যেহেতু আহলে বায়াত খোলাফায়ে রাশেদা ওনারা আমাদের ঈমানের অবিচ্ছেদ্য অংশ । কিন্তু এই আহলে বায়াতের সম্মান প্রদর্শনের ক্ষেত্রে বা আশুরা পালনের ধারাবাহিকতায় শীয়াদের কোন অবস্থাতেই প্রশংসা করা যাবে না- ইমাম খোমেনীকে প্রধান্য দেওয়া যাবে না । আমরা যদি আহলে বায়াতের সম্মান প্রদর্শনের ক্ষেত্রে ইমাম খোমেনীকে সমর্থন দেই বা তার গুণকীর্তন করি তবে প্রত্যক্ষ এবং পরোক্ষভাবে শীয়াবাদকে সমর্থন দেওয়া হয় ।

শিয়াবাদের বিষয়ে কিছু –

শীয়াবাদ ঐতিহাসিকভাবে কালামশাস্ত্রবিদগণের নিকট বাতেল ফেরকা এবং তাদের ভেতর গোড়ামী বিদ্যমান, তারা আল্লাহর রাসূলের অসংখ্য হাদীসকে, কোরআনের আয়াতকে তারা এনকার বা অস্বীকার করে ।

আশুরা উদযাপনে আমরা এবং শিয়ারা_

ইসলামের শরীয়াতে উদযাপন বিষয়টা মুখ্য নয়, মূল হলো মহব্বত । আর উদযাপন আমি করতে গেলাম সেখানে তাসাবাহাত চলে আসলো শীয়াদের সাথে তাহলে সে ক্ষেত্রেও এসকাল আছে । আর এই উদজাপনের ক্ষেত্রে বুকচাপড়ে শরীরকে রক্তাক্ত করে, মাতম  করে দিবসকে উদযাপন করা এগুলো শারীয়াত নিষেধ করেছে । বোখারী শরীফের হাদীসের মাঝেও আমরা দেখতে পাই অনেক রাবী শিয়া আছেন, রাফেয়ী আছেন সেক্ষেত্রেও সেই সব হাদীসকে আমাদের বাছাই করে নিতে হবে । শীয়াদের উদযাপনের সাথে আমাদের উদযাপনটা যাতে  মিলে না যায় সে জন্যে আমরা ওয়াজ মাহফিল বা সেমিনার সম্মেলনে আহলে বায়াতের আলোচনা করে দিবসটিকে উদযাপন করে থাকি । কিন্তু শীয়ারা উক্ত দিবসটাকে ভিন্ন আঙ্গিকে ভিন্নভাবে শারীয়াতের সীমাকে লংঘন করে উদযাপন করছে ।

আশুরা উদযাপনে খোমেনীর অবদান –

আর এই দিবসটিকে উদযাপন করে খোমেনীকে বাহবা দেওয়া যাবে না ।

খোমেনীকে ইমাম বলা যাবে না , খোমেনী সাহেবকে ইমাম বললে সাধারণ মানুষের মাঝে খোমেনীর প্রতি শ্রধ্যা  চলে আসবে, সাধারণ মানুষ খোমেনীর দিকে মায়েল হয়ে যেতে থাকবে । সুতরাং এই সমস্ত দিবস উদযাপনের ক্ষেত্রে এসে খোমেনীকে বাহবা দেওয়া শীয়াবাদের প্রচার প্রসারকে এগিয়ে নেওয়া একই কথা ।

শীয়াদের একটি আলাদা স্টেট আছে কিন্তু ছুন্নীদের কোন আলাদা স্টেট নেই, আর তাই ইমামে হুসাইন রাদী ইন্তেকালের পর উক্ত দিবসটিকে পালনের মতো কোন একক শক্তির প্রাদুর্ভাব ঘটেনি । পরবর্তীতে আস্তে আস্তে এই দক্ষিন  এশিয়ার সাবকন্টেইনেন্টে এই দিবসটি সঠিকভাবে সুন্দরভাবে উদযাপন হয়ে আসছে । তাছাড়া উমাইয়া শাসনআমল থেকে শুরু করে পরবর্তী সময়ে এই দিবসটিকে আহলে ছুন্নাহ ওয়াল জামাআত সঠিকভাবে পালন করতে পারেনি , কিন্তু যেই যে বিষয়টা লাজেম বা জরুরী তা হলো অন্তরে মহব্বত রাখা দোয়া করা সেটা ইমামে হুসাইনের রাদি ইন্তেকালের পরবর্তীকালে একটি জামাআত সর্বকালে সর্বসময়ে করে এসেছেন আর আজ তারই ধারাবাহিকতায় আজো আমরা পালন করে আসছি । কিন্তু এই উদযাপনের একক কীর্তি যে শুধু ইমাম খোমেনীর তা কিন্তু নয় । আর হলেও সেটাকে সমর্থন দিলে শীয়াবাদের সমর্থন দেওয়া হবে।

খোমেনীর বিষয়টা লক্ষ্য করুন, ওনার লিখিত বই বা কিতাব পড়া এক বিষয় আর ওনার থেকে শিক্ষা নেওয়া ভিন্ন বিষয় । উদাহরণস্বরূপ তাফসীরে কাশশাফ , উক্ত তাফসীর এর কিতাব থেকে আমরা শিক্ষা গ্রহণ করে থাকি কিন্তু মুছান্নিফের জীবনী থেকে শিক্ষা নেবার ক্ষেত্রে আমাদের প্রতিবন্ধকতা আছে যেহেতু তিনি মুতাজিলা আকীদার ছিলেন ।

আবার শিক্ষা নেবার ক্ষেত্রে আমালান শিক্ষা নেওয়া যেতে পারে কিন্তু আকীদাতান শিক্ষা নিলে সেটা ঈমান বিধ্বংসী অবস্থানে চলে যাবার অবস্থা চলে আসে কিনা সেটাও খতিয়ে দেখতে হবে ।

ঐক্যের প্রশ্নে কি শিয়াদের সাথে ঐক্য সম্ভব ? 

ঐক্যমতের ক্ষেত্রে প্রশ্ন আসে –যে উম্মাতের ঐক্য কিসের ভিত্তিতে হবে ? আকীদার মানদন্ডে নাকি আমালের মানদন্ডে ? এখন সকল বাতেল ফেরকাকে সাথে নিয়ে আপনি যদি ঐক্য গড়তে চান সেক্ষেত্রে তো “ইসলাম” তার স্বরুপে স্ব অবস্থানে টিকে থাকে না । ঐক্যের অবস্থানে আহলে হাক্ক যারা, আহলে ছুন্নাহ ওয়াল জামাআতের মাঝে যারা ত্রুটিপূর্ণ অবস্থানে আছে বা বিচ্ছিন্ন অবস্থানে দন্ডায়মান  তাদেরকে নিয়ে ঐক্য গড়ে তুলতে পারেন – এটা মৌলিক একতা । আরেক ছুরত হচ্ছে জাতিগত একতা আর সেটাও একজন মহান ব্যক্তিত্ত তিনি চিকিৎসকের ভূমিকায় গিয়ে জাতিগত একতার ডাক দিতে পারেন । কিন্তু  যারা মকবুল সাহাবায়েকেরামগণের খেলাফাতের বিরোধীতা করে থাকেন, খোলাফায়ে রাশেদার বিরোধিতা করে থাকেন – তাদেরকে নিয়ে আপনি কিভাবে ইসলামের ঐক্য গড়ে তুলবেন ? মোনাফেকের সাথে কোন অবস্থাতেই ঐক্যের সুরের মূর্ছনায় মিতালী আসতে পারে না ।

বিঃ দ্রঃ উক্ত টেলি সাক্ষাৎকারটি টাইমস৭১বিডি এর আর্কাইভে সংরক্ষিত আছে 



This post has been seen 3071 times.
শেয়ার করুন

Recently Published

Untitled-1
»

ইসলাম প্রতিমার বিরুদ্ধে, ভাস্কর্য ও মূর্তির বিরুদ্ধে নয়, একটি দালীলিক পর্যালোচনা

নাজমুল মুহম্মদ ...

Untitled-2
»

আহমাদিয়া মুসলিম জামাত নামধারী কুখ্যাত কাফের কাদীয়ানিয়াদের স্বরূপ উন্মোচন – ২য় খন্ড

সোনার বাংলাসহ গোটা ...

tumblr_m5ttvwJwae1qkwmgko1_1280
»

মেরাজুন্নাবী (সা) এর মূল দীক্ষাকে অস্বীকার করা প্রত্যক্ষভাবে শানে রেসালাতের অস্বীকৃতি

টাইমস৭১বিডি ডেস্ক, ঢাকা ...

18057189_1341071809310969_2890218475897828093_n
»

উম্মেহানী এর পরিচয় ও নাস্তিকদের দাঁত ভাংগা জবাব

মাসুদ পারভেজ – ...

2014-07-23-GayMene1379371366872
»

কিভাবে বাংলাদেশের জেলায় জেলায় বিদেশী অর্থায়নে ছড়িয়ে দেওয়া হচ্ছে সমকামীতা

নিলয় হাসান বলছি –  জেনে ...

8715089964_5a14e1f7f9
»

হেফাজতে ইসলামের চেতনার মূল গোড়ায় “ওহাবীবাদ রাজনীতি”

ইন্টারনেট থেকে প্রাপ্ত ...

ddgdgdg
»

কাদীয়ানিয়াত আহমাদিয়া মুসলিম জামাতের স্বরূপ উন্মোচনে ধারাবাহিক আলোচনা- ১ম পর্ব

ব্লগ ডট টাইমস৭১বিডি থেকে ...

14650162_1793332307615351_7045395582977483766_n
»

“খোমেনীকে সমর্থন দেওয়া মানে শিয়াবাদকে সমর্থন দেওয়া”

‘টাইমস৭১বিডি ‘র ...

salamun alaika
»

আমার প্রিয়নবীর পিতা মাতা নিষ্পাপ-মুমিন-ঈমানদার মুসলমান ছিলেন, জাহান্নামী নন

আমার প্রিয়নবীর  (সা) পিতা ...

Shares
Loading...